ডায়াবেটিস রোগ সম্পর্কে কিছু প্রচলিত ভুল ধারণা এবং আসল তথ্য
বৃহস্পতিবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৭   |  ৬ আশ্বিন ১৪২৪   |   ২৮ জিলহজ্জ, ১৪৩৮
{{theTime}}
নিউজ রিপোর্টারঃ

ডায়াবেটিসকে বলা হয় নীরব ঘাতক। বিশ্বের বহু মানুষ এ রোগে আক্রান্ত। ডায়াবেটিস নিয়ে বহুকাল ধরে গবেষণা হয়ে আসছে। মানুষের মাঝে এ রোগ নিয়ে বহু ভুল ধারণা প্রচলিত রয়েছে। এখানে জেনে নিন, বহুমূত্র রোগ সম্পর্কে কিছু প্রচলিত ভুল ধারণা এবং আসল তথ্য।

১. তিতা স্বাদযুক্ত খাবার রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ হ্রাস করে বলে মনে করেন সবাই। এ করণে করলা বা নিম বা অন্যান্য তিতা খাবার খান। এটা ভুল একটি ধারণা।
আসল তথ্যটি হলো, রক্তের গ্লুকোজ বৃদ্ধি পায় কার্বোহাইড্রেটপূর্ণ খাবার থেকে। এমনকি সেগুলো মিষ্টি না হলেও গ্লুকোজের মাত্রা বৃদ্ধি পায়।

২. ডায়াবেটিস রোগীদের কোনো প্রকার সুইটেইনার খাওয়া উচিত নয় বলে ভাবেন অনেকে। এটি ভুল ধারণা।
সত্যটা হলো, চিনির দুটো বিকল্প খেতে পারবেন। ফ্রুকটোজ সুগার (যা ফলে থাকে) এবং কৃত্রিম সুইটেইনার।

৩. ডায়াবেটিস রোগীরা ফল খেতে পারেন না। এটাও একটা ভুল ধারণা।
আসল তথ্য হলো, ডায়াবেটিস রোগীরা ফল খেতে পারবেন। কারণ এতে ফাইবার রয়েছে। তাই ফ্রুকটোজ খুব ধীরে রক্তে মেশে। আর ইনসুলিন ছাড়াই আমাদের দেহ ফ্রুকটোজকে কাজে লাগাতে পারে। তবে ফলের জুস খাওয়া উচিত নয়। কারণ জুসে ফাইবার থাকে না। এ কারণে কলা, আম, আঙ্গুর, আখ এবং পিষে ফেলা আপেল খাওয়া ঠিক নয়।

৪. সকল কৃত্রিম সুইটেইনার খাওয়া নিরাপদ বলে ভুল ধারণা পোষণ করেন সবাই।
আসল তথ্যটা হলো, বহু কৃত্রিম সুইটেইনারে এক ধরনের উপাদান রয়েছে যার নাম 'অ্যাসপারটেম'। এটি কোল্ড বেভারেজসহ বহু খাদ্যতে ব্যবহৃত হয়। এটি উচ্চ তাপমাত্রায় মিষ্টি নিঃসৃত করে। গবেষণায় বলা হয়, এই সুইটেইনার মস্তিষ্কে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে। ডায়াবেটিস রোগীদের এই উপাদানপূর্ণ সুইটেইনার খাওয়া উচিত নয়।

৫. ডায়াবেটিস রোগীরা বাইরে খাওয়া থেকে বিরত থাকেন। ভুল ধারণা থেকেই এ কাজটি করেন তারা।
ডায়াবেটিস রোগীরাও যেকোনো রেস্টুরেন্টে খেতে পারেন।

৬. ডায়াবেটিস রোগীদের বেশি ভাত খেতে নেই বলে ভুল ধারণা প্রচলিত রয়েছে।
কিন্তু তারাও ভাত খেতে পারেন। তবে এর পরিমাণ নির্ভর করে কি ধরনের ডায়াবেটিস হয়েছে তার ওপর।

৭. ডায়াবেটিস রোগীরা স্থূলতা থেকে বাঁচতে বেরিয়াট্রিক সার্জারি করতে পারবেন না বলে জানেন সবাই। এটা ভুল ধারণা।
স্থূলতা ডায়াবেটিস রোগীদের বড় সমস্যা। এ থেকে বাঁচতে অনেকের বেরিয়াট্রিক সার্জারির প্রয়োজন হয়। এই সার্জারি নিতেই পারেন তারা। বরং নেওয়াটা জরুরি হয়ে ওঠে। কারণ স্থূলতার কারণে হাড়ের সংযোগস্থলে ব্যথা, অ্যাজমা, ঘুমের সমস্যাসহ নানা সমস্যা দেখা দেয়।

৮. ডায়াবেটিস রোগীদের যত দ্রুত সম্ভব ওজন কমানো উচিত বলে ভাবেন অনেকে। এটা আসলে ভুল ভাবনা।
স্থূলকায়দের জন্যে ওজন কমানো জরুরি। কিন্তু ডায়াবেটিস রোগীদের খাদ্য নিয়ন্ত্রণ করে ওজন কমানোর কথা বলেন না চিকিৎসকরা।
সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া

আর্কাইভ

September 2017

SunMonTueWedThuFriSat
1

2

3

4

5

6

7

8

9

10

11

12

13

14

15

16

17

18

19

20

21

22

23

24

25

26

27

28

29

30

Create Account



Log In Your Account



সদ্য সংবাদ